বাঙ্গালী
Tuesday 26th of September 2017
  • কারবালার বিয়োগান্ত ঘটনা : একটি সংক্ষিপ্ত দৃষ্টিপাত (২য় অংশ)

    বক্ষমান নিবন্ধটি ড. সাইয়্যেদ জাফর শাহীদী রচিত বিখ্যাত ‘কেয়ামে ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম’(ইমাম হুসাইনের অভ্যুত্থান)-এর সংক্ষিপ্ত অনুবাদ। ফার্সী ভাষায় রচিত এ বিখ্যাত গ্রন্থটি কয়েক বছর পূর্বে প্রকাশিত হয় এবং প্রকাশের পর পরই ইমাম হুসাইন (আ.)-এর ভক্ত-অনুরক্তদের দ্বারা ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়। লেখক দীর্ঘ পঞ্চাশ বছর যাবত এ বিষয়ে যে অধ্যয়ন ও গবেষণা করেছেন এ মূল্যবান গ্রন্থে তারই প্রতিফলন ঘটেছে। ব্যাপক অধ্যয়ন ও গবেষণার কারণেই তিনি ইতিহাসের এ বিয়োগান্ত ঘটনার এমন কতক অন্ধকার দিক অত্যন্ত সাফল্যের সাথে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছেন যার প্রতি এ বিষয়ে লিখিত অন্যান্য ইতিহাসবিদদের রচনায়

  • ইমাম হুসাইন (আ.)-এর জীবনী- ৩য় পর্ব

    (পূর্ব প্রকাশিতের পর) ইমাম হুসাইন (আ.)-এর শাহাদাত সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী এ প্রসঙ্গে প্রচুর হাদীস ও বর্ণনা রযেছে। মহানবী (সা.) বিভিন্ন সময়ে মুসলিম উম্মাহকে ইমাম হুসাইনের শাহাদাত সম্পর্কে অবগত করেছেন যাতে করে তারা পূর্ব হতেই ইমাম হুসাইনের মর্যাদা,গুরুত্ব,ভূমিকা ও কর্মকাণ্ড অনুধাবন করতে এবং সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে ভুল না করে। এখানে ইমাম হুসাইনের শাহাদাত সংক্রান্ত কতিপয় হাদীস

  • শিয়া আধ্যাত্মিক গবেষণা কেন্দ্র ১৩৭৭ শা. কা. নিজের কাজকে হযরত উস্তাদ হুসাইন আনসারিয়ানের তত্ত্বাবাধানে

    শিয়া আধ্যাত্মিক গবেষণা কেন্দ্র ১৩৭৭ শা. কা. নিজের কাজকে হযরত উস্তাদ হুসাইন আনসারিয়ানের তত্ত্বাবাধানে শুরু করেছে। এই দীনি পতিস্থান সাংস্কৃতি মন্ত্রণালয় ও এরশাদে ইসলামী হতে অনুমতি পত্র নিম্নের শর্তর সাথে স্থাপিত হল। কর্মঃ ও উদ্দেশ বিষয়ঃ আমাদের উদ্দেশ হচ্ছে আমরা মহানবী (সা.) এই হাদিসের অনুযায়ী নিজের উদ্দেশকে শুরু করব (إني تارك فيكم الثقلين كتاب الله ، وعترتي أهل بيتي ) এবং আকাঈদী সীমা যা আলে মোহাম্মাদের মাকতাবে তার রক্ষা করা। এই পতিস্থানের এবং বিষয় বস্তু নিম্নে উল্লেখ হলঃ ১- এই পতিস্থানের সম্পুন্য চেষ্টা এই যে যাতে করে দেশে ও বিদেশে মানুষের মধ্যে মোহাম্মাদ ও আলে মোহাম্মাদ (সা.) কে পরিচিত করতে পারে। ২- প্রবান্ধ লিখা এবং মাযহাবী পুস্তককে অন্যান্য ভাষাই অনুবাদ করানো। ৩- প্রদর্শনী সাংস্কৃতি শিল্পর সরকারী ও বেসররারী সেমিনার সমূহে পতিস্থানের সাথে সহযোগিত করা। ৪- এই পতিস্থান সাংস্কৃতি কাজেও অগ্রবর্তী আছে বই প্রকাশন এবং সফটওয়্যার। ৫- এই পতিস্থানের সম্পূর্ণ চেষ্টা এটাই যে ঐতিহাসিক জিনিষকে সংগ্রহ করে যাতে করে শিয়া মাযহাবের সাংস্কৃতি মিরাসী সাহায্য করতে পারে। ৬- দেশী এবং বিদেশী শিল্প ও মাযহাবি পতিস্থানের সাথে সম্পর্কিত হয়া। ৭- বইকে অনুমতির সাথে প্রিন্ট করা এবং বিভিন্ন বিষয়ে বই প্রিন্ট করা আর শিয়া মাযহাবকে জীবিত রাখা। ৮- প্রাইভেট ও সাধারণ লাইব্রেরী স্থাপিত করা যাতে মাযহাবি অডিও এবং ভিডিও রেকর্ড করা। ৯- সাইটকে বানানো যার মাধ্যমে ইসলামী জ্ঞানকে প্রচার করা। ১০- একটি পতিস্থান বানানো তার মাধ্যমে ইন্টারনেট, টেলিফোন উপস্তিত ব্যাক্তিদের আকিদাগত, চারিত্রিক, পারিবারিক এবং সামাজিক প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে। ১১- ইস্পেশাল পতিস্থান স্থাপিত করা মোবাল্লেগীন এবং তাবলীগ কারীর (দেশে ও বিদেশে) তারবিয়াত করা। ১২- হযরত উস্তাদ হুসাইন আনসারিয়ানের বই সমূহ একত্রিত করা এবং প্রিন্ট করা। বিশেষ করে এই চার দশকে উস্তাদের মজলিস, বই সমূহ এবং উনার চিন্তা যুবকদের উপরে অনেক প্রভাব রেখেছে। উস্তাদের বই যেমন ৮০ খন্দ ৫০ টি বিষয়ে সাথে এবং ৫ হাজার ঘণ্টা বক্তৃতা যা ৪৮০ টি বিষয়ের উপর আছে, যেমনঃ আকাঈদ, আহলে বাইত (আ.) এর সিরাতের (চরিত্র) উপর, আখলাক, কুরআনের তাফসীর, ইসলামী কালাম ও আধ্যাত্মিকের উপর এই সমস্ত বই এই গবেষণা কেন্দ্রর তত্ত্বাবাধানে প্রিন্ট হয়েছে। আল্লাহ্‌র অশেষ কৃপায় এই পতিস্থানের তত্ত্বাবাধানে আরো কিছু সাইটে কাজ হচ্ছে। ১. আধ্যাত্মিক ( www.erfan.ir ) ২. আনসারিয়ান ( www.ansarian.ir ), ৩. ইমাম সাজ্জাদ (www.emamsajjad.com) ৪. শিয়া ইসলাম (www.shieh.ir) এই সমস্ত সাইট পৃথিবীর ২৮টি জিবিত ভাষাই কাজ করছে। সব চাইতে গুরুতপূর্ণ অংশ প্রায় তিন হাজার বক্তৃতা বিভিন্ন বিষয়ে জনগণের হাতে পোঁছে দেওয়া হয়েছে এবং তার সাথে সাথে মাযহাবী অনুস্থানে কয়েক হাজার প্রশ্নোত্তর যা আকিদাগত, আখলাকি, কালামি এবং ফিকহী বিষয়ের উপরে তার উত্তর দেওয়া হচ্ছে এবিং তার সাথে সাথে পবিত্র কুরআন, নাহজুল বালাগাহ ও সাহিফায়ে সাজ্জাদিয়া যা স্বয়ং উস্তাদ অনুবাদ করেছেন বিদ্যমান আছে। ইসলামী ময়ারেফে ইসলামী ছাত্র এবং গবেষণা করীদের জন্য সুসংবাদ দিয়েছে যে উস্তাদ আনসারিয়ানের সমস্ত বক্তৃতা নতুন সংকলনের সাথে প্রিন্ট হোয়ে গেছে। এই ভাবে উস্তাদের মানুষকে গোঁড়ে তুলার বক্তৃতা যা শিয়া গুরুত্বপূর্ণ পুস্তক দ্বারা বিয়ান করা হয়েছে বইয়ের রুপে জনগণের হাতে দেওয়া হবে, এবং একটি মানাবে (মূল) হিসাবে গবেষক ও উলামাদের কাজে আস্তে পারে। শেষে আল্লাহ্‌র এই কাজ করার তৌফীক কামনা করি এবং উস্তাদের অনুসরণ কারীদের প্রতি দরখাস্ত যে আরোবেশি বই এবং বক্তৃতা ব্যপারে জানতে চাইলে এই পতিস্থানের ঠিকানায় যোগা যোগ করতে পারেন। ঠিকানাঃ খিয়াবানে শাহীদ ফাতেমী ( দোরেশহর ) গোলি নং ১৯ বাড়ী নং ২৭, টেলিফোনে নং ০২৫১-৭৭৩৫৩৫৭, ৭৭৩৬৩৯০ ফাক্স নং ০২৫৭৮৩০৫৭০ ই-মেইলঃ info@erfan.ir

  • বইয়ের সূচীপত্র ফার্সি বই

    ১- কুরআনের অনুবাদ ২- নাহজুল বালাগাহর অনুবাদ ৩- সাহিফায়ে সাজ্জাদিয়ার অনুবাদ ৪- মাফাতিহুল জিনান অনুবাদ ৫- শারহে দোয়া –ই- কোমাইল ৬- আহলে বাইত আরশিয়ান ফারশ নাশিন ৭- মুয়াশেরাত ৮- জেলয়েহাই রহমতে ইলাহি ৯- ফারহানগে মেহরোরুযী ১০- ইবরাত আমুয ১১- চরিত্রর সন্দ্রয ১২- তওবা আগুশে রাহমাত

  • কয়েক শতাব্দী ধরে খোনসারের কাসবে বড় জ্ঞানী এবং ব্যাক্তিত্বকে সমাজের জন্য নিযুক্ত করেছেন।

    মৃত আয়াতুল্লাহ আগা জামাল খোনসারী ( রা.হ ) , মারহুম আয়াতুল্লাহুল উযমাহ সৈয়দ মহাম্মাদ তাকী খনসারী ( রা.হ ) , মারহুম আয়াতুল্লাহুল উযমাহ সৈয়দ আহমাদ খোনসারী ( রা.হ ) এবং আরো কয়েক হজার বড় বড় মওলানা যা ইরানের এই অঞ্চল হতে ছিল। উস্তাদ হুসাইন আনসারিয়ান ও এই শহরেই ১৮ আবান ১৩২৩ শামসীয়ে কামারীতে জন্ম গ্রহণ করেন। উনার পিতা হাজ শেখের বংশ হতে ছিলো। এই বংশ একটি প্রসিদ্ধ এবং দীনের খেদমত কারীর মধ্যে হতে আছে। অনেক প্রসিদ্ধ উলামা ( মওলানা ) এই বংশে দেখা যায়। মারহুম আয়াতুল্লাহুল উযমাহ শেখ মুসা আনসারিয়ান (খোনসারী) ( রা.হ )ও এই বংশ হতে ছিল। যার জ্ঞান এবং মাযহাবী ব্যাক্তিত্ব হওয়া কার কাছে গোপন নাই। মারহুম আয়াতুল্লাহুল উযমাহ ইমাম খোমেনী ( রা.হ) বলতেনঃ শিয়া মাযহাবে সর্ব উত্তম বই নামাযের সম্পর্কে (শিয়া ফিকেহ কিতাবে সালাত ) , মারহুম আয়াতুল্লাহ আনসারিয়ান লিখেছেন। উনি আরো বই লিখেছিলেন যার তার মধ্যে একটি বই মানিয়াতুত তালেব যা আয়াতুল্লাহ নায়েনীর সঙ্কলন বক্তৃতা। নাযাফের কাতেবাহতে উলামাদের বিশ্বাস ছিলো যে মারহুম আয়াতুল্লাহুল উযমাহ ইস্ফাহানীর মৃত্যুর পর উনার তাকলিদ করা যাবে কিন্তু জিবন তার সাথ দিলো না এবং উনি মারহুম আয়াতুল্লাহুল উযমাহ ইস্ফাহানীর পূর্বেই মৃত্যু বরন করেন। উস্তাদ মাতা একই শহরের সৈয়দ মোস্তফায়ী বংশ থেকে ছিলেন। উস্তাদের নানা এই শহরের প্রসিদ্ধ ব্যক্তি এবং আমানতদারী প্রখ্যাত ছিল এবং যখনি কোন উলামা নাজাফ অথবা কুম থেকে খোনসারে গেলে উনার বাড়ীতে ও যেতেন। উস্তাদ নিজের তিন বৎসরের ঘটনা সরণ করে বলেনঃ একবার মারহুম আয়াতুল্লাহুল উযমাহ সৈয়দ মহাম্মাদ তাকী খোনসারী ( রা.হ ) আমার নানার বাড়ীতে এসেছিলেন। আমি রুমে প্রবেশ করে সোজা মারহুম আয়াতুল্লাহ খোনসারীর কোলে বসে গেলাম, আমার নানা উঠে এলেন আমাকে নিয়ে ভিতরে মহিলাদের মধ্যে যাবেন তখন মারহুম আয়াতুল্লাহ খোনসারী উনাকে নিষেধ করলেন এবং আমাকে নিজের কোলে বসিয়ে নিলেন এবং আদর করতে লাগলেন এবং উনি আমার থেকে জিজ্ঞাসা করলেনঃ বড় হয়ে কি করবা ? আমি উত্তর বল্লামঃ আমি চায় আপনার মতন হতে , উনি সেই সমাই আমার জন্য দোয়া করলেন। যখনি ঐ ঘটনা আমার সরণ পরে উনার নুরানি চেহরা এবং উনার দোয়া আমার সরণে চলে আসে তো আমার জিবনের উত্তম সমই ফিরে আসে। উস্তাদ আনসারিয়ান যখন তিন বৎসরের ছিলেন তখন উনার পিতা মাতা তেহরানে শিফট হয়ে গেছিলেন , এবং তিনি একটি মাযহাবী এলাকায় যার নাম খিয়াবানে খোরাসান ছিল। ঐ সমায় সেইখান কার জ্ঞানী ব্যাক্তি মারহুম আয়াতুল্লাহ হাজ শেখ আলী আকবর বুরহানী ( রা.হ ) ছিলেন। উস্তাদ শিশু কাল থেকেই উনার জ্ঞান হতে লাভবান হয়েছেন। উস্তাদ কয়েক বার তার সম্পর্কে বলেছেনঃ " মলানাদের মধ্যে হতে উনার মতন কোন মলানা এখন পর্যন্ত আমি দেখিনি। আয়াতুল্লাহ বুরহান এক জন জ্ঞানী আলেম ও মজতাহিদ ছিলেন সেই সমাই তিনি লুরের মসজিদের ইমামে জামাত ছিলেন তিনি মসজিদকে এমন ভাবে শৃঙ্খলাই নিয়ে এসেছিলেন যে বৃদ্ধ ও যুবক সবাই মসজিদে আসতে পছন্দ করত এবং তিনি এই কাসাবাই একটি মাদরাসা বানালেন এবং ছাত্ররা প্রথম কেলাস হতে উনার আন্ডারে তারবিয়াত পেলো। আয়াতুল্লাহ আনসারিয়ান মারহুম আয়াতুল্লাহ বুরহান সম্পর্কে এইরূপ বলেন আমি কয়েকবার কেলাসে এবং মেম্বারের মাধ্যমে উনার থেকে শুনেছি যে উনি কখন তেহরানে যাওয়া পছন্দ করেন না এবং তেহরানে উনাকে দাফন করা হোক , এবং এই বিষয়টি উনার জন্যে দোয়ার অংশ হয়েগেছিল এবং তিনি শবে ক্বাদরের রাত্রেও এই দোয়া করতেন । ১৩৩৭ শা. তখন আমি ১৪ বসরের ছিলাম উনি হজ করতে গেছিলেন এবং জাদ্দার রাস্তায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন আর উনাকে মা হযরত হাওয়ার মাযারের নিকতে দাফন করা হল। উনার নুরানি চেহরা এবং উনার জীবনের ধরন ও তরিকা উস্তাদের জিবনে অনেক প্রভাব রাখে যে এখন পর্যন্ত উনার না হওয়ার উস্তাদ নিজের ভিতরে অনুভাব করেন। শিশু কাল থেকেই আয়াতুল্লাহ আনসারিয়ান মহান ব্যাক্তিত্বদের সাথে অন্তরঙ্গ ছিল। উস্তাদ আয়াতুল্লাহ আনসারিয়ান দুইটি দীনি মাদ্রাসায় ( তেহরান ও কুমে ) পড়াশুনা করেছেন এবং আরাবি গ্রামার শেষ করার পর হযরত আয়াতুল্লাহ মির্জা আলী ফালসাফির নিকটে আসলেন এবং তিনি সেই সমায় আয়াতুল্লাহ বুরহানির পরে লুর মসজিদের পেশ ইমাম ছিলেন, এবং উনার থেকে অনুরোধ করলাম আমাকে মুয়ালেমুল উসুল প্রাইভেটে পড়ানোর জন্যে। উস্তাদ সেখানে লোমাতায়ন শেষ করার পর। কুমে পড়ার জন্যে উনার থেকে অনুমতি চায়লেন আয়াতুল্লাহ মির্জা আলী ফালসাফিও উস্তাদকে অনুমতি দিলেন কুমে পড়ার জন্যে। উস্তাদ আয়াতুল্লাহ আনসারিয়ান উনাকে নসিহত করার জন্যে বললেন তখন তিনি মহানবী ( সা.) এর হাদিস বর্ণনা করলেনঃ ( من کان للہِ کان اللہُ لہُ ) উস্তাদ আয়াতুল্লাহ আনসারিয়ান বলেনঃ সেই দিনের পরে আমি সর্বদা চেষ্টা করি আল্লাহ্‌র সাথে থাকতে এবং মহান আল্লাহ্‌ও আমার সাথে থাকুক , যে কেউ আল্লাহ্‌র সাথে হবে মহান আল্লাহ্‌ও তার সাথে হবেন। উস্তাদ আয়াতুল্লাহ আনসারিয়ান কুমের হাওযাতেও তেহরানের মতন বড় উলামাদের সাথে সম্পর্কিত ছিলেন । এই কারনে মারহুম আয়াতুল্লাহ হজ আব্বাস তেহরানী ( রা.হ ) উনার সাথে দেখা করলেন এবং উনার থেকে উপকারিত হন । এইভাবে মারহুম হজ জনাব হুসাইনে ফাতেমী ( রা.হ ) আখলাকের ক্লাসেও উপস্থিত হন এবং সেই সম্পর্কে বলেনঃ আয়াতুল্লাহ ফাতেমী প্রায় আখলাকের ক্লাসে নিজেও ক্রন্দন করতেন এবং উনার ছাত্ররাও ক্রন্দন করত । উচ্চ পরিমানের পড়াশোনা শেষ করার পর ইস্তেম্বাতে ফিকহ ও উসুলের পরে দারসে খারিজ পড়া শুরু করলেন পড়ার এই অংশয় বিভিন্য মারজায়ে দিনীর নিকট যেমন মারহুম আয়াতুল্লাহ সৈয়দ মুহাম্মাদ মহাক্কিকে দামাদ ( রা.হ ) আয়াতুল্লাহ মুন্তাযারী , মারহুম আয়াতুল্লাহ হজ শেখ আবুল ফাযল নাজাফী খোনসারী ( রা.হ ) , এবং বিশেষ করে কয়েক বছর মারহুম আয়াতুল্লাহ উযমাহ হজ মির্জা বাশিম আমেলী ( রা.হ ) হতে উপকারিত হন । এই সমস্ত জ্ঞান অর্জন করার ফল হচ্ছে তিনি মারহুম আয়াতুল্লাহ হজ মির্জা বাশিম আমেলী ( রা.হ ) মূল্যবান বক্তৃতাকে একটি বইয়ের আঁকারে বের করেন । উনি হিকমত বিষয়কে আয়াতুল্লাহ গিলানীর নিকটে এবং মুয়ানীয়ে বিয়ান ও বাদিয়কে হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলেমীন জাওয়াদী নিকতে অর্জন করেন । মারহুম আয়াতুল্লাহুল উযমাহ মিলানী ( রা.হ ) , মারহুম আয়াতুল্লাহুল উযমাহ আখুন্দ হামাদানি ( রা.হ ) , মারহুম আয়াতুল্লাহ কামরেহয়ী ( রা.হ ) মারহুম আয়াতুল্লাহুল উযমাহ গুলপায়গানী ( রা.হ ) , মারহুম আয়াতুল্লাহুল উযমাহ সৈয়দ আহমাদ খোনসারী ( রা.হ ) , মারহুম আয়াতুল্লাহুল উযমাহ মারাশী নাজাফী ( রা.হ ) এবং মারহুম আয়াতুল্লাহুল উযমাহ ইমাম খুমাইনী ( রা.হ ) এই সমস্ত মারজাদের নিকতে জ্ঞান অর্জন করেছেন। উস্তাদ সমস্ত দ্বিনী ও হাওযায়ী জ্ঞানকে এবং সমস্ত উস্তাদের নিকট হতে জ্ঞান অর্জন করে নিজের আসল উদ্দেশ যা ইসলামী ও দ্বিনী জ্ঞান অর্জন কারির উপর জরুরী যে ইসলামী তাবলীগকে শুরু করা অনেক অসিবিধার সাথে কুম থেকে তেহরানে এসেছেন এবং এখনও তিরিশ বছরেরও বেশি তিনি ইসলামের তবলীগে ব্যাস্ত আছেন যা এলাহি ওয়াজিফার মধ্যে হতে একটি ওয়াজিফাহ (দায়িত্ব) চার হাজার মজলিসের ক্যাসেট বিনা পুনরাবৃত্তি এবং চল্লিশেরও বেশি বই যা প্রায় আশি খন্দ আছে । বইয়ের সূচীপত্র ফার্সি বই

মুসলিম বিশ্বের সংবাদ

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এক রাত

ইরাকে দায়েশের হামলা, ৩ ইরানিসহ ৫০ ব্যক্তির প্রাণহানী

হিজবুল্লাহকে নিয়ে আতংকে তেল আবিব : লেবাননে ইসরাইলি আগ্রাসনের সম্ভাবনা'

মিয়ানমারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ইরানের আহ্বান

সিরিয়া- লেবানন অভিন্ন সীমান্তে তাকফিরি সন্ত্রাসীগোষ্ঠী দায়েশ ঘেরাও হয়ে পড়েছে’

রাখাইন রাজ্যে ফের সহিংসতায় ১২ সেনাসহ নিহত ৮৯

কাবুলে ইমামে যামানা (আ.) মসজিদে সন্ত্রাসী হামলা

হল্যান্ডের মুসলিম স্কুলে ইসলাম বিদ্বেষীদের হামলা

২৮০ জন শরণার্থীকে সমুদ্রে নিক্ষেপ, নিহত ৫৬

রাখাইনে কারফিউ, সেনা মোতায়েন

আফগানিস্তানে দায়েশ হামলায় ৬০ শিয়ার শাহাদত, ৪৭ যুবতি অপহৃত (ছবি)

আটক দায়েশ সন্ত্রাসীর সাক্ষাতকার

আর্কাইভ

প্রবন্ধ

হযরত ইমাম হোসেনের (আ.) আন্দোলনের তাৎপর্য

ইমাম হোসাইন (আ.)-এর মহান শাহাদাতের লক্ষ্য

ইমাম হোসাইন (আ.)'র কয়েকটি অমর বাণী

ইমাম হুসাইন (আ.)-এর জীবনী-৪র্থ পর্ব

ইমাম হুসাইন (আ.)-এর জীবনী-৭ম পর্ব

কারবালার বিয়োগান্ত ঘটনা : একটি সংক্ষিপ্ত দৃষ্টিপাত (২য় অংশ)

কারবালার বিয়োগান্ত ঘটনা : একটি সংক্ষিপ্ত দৃষ্টিপাত (১ম অংশ)

কারবালার মহাবিপ্লব ইসলাম ও মানব-সভ্যতার শ্রেষ্ঠ গৌরব

মহররমের চাঁদ দেখা গেছে

'মহররমের দর্শন'

ইমাম হুসাইন (আ.)-এর জীবনী- ৩য় পর্ব

ইমাম হুসাইন (আ.)-এর জীবনী-২য় পর্ব

আর্কাইভ

Mustabser

মিয়ানমার ফুটসাল দলের ইরানি কোচের পদত্যাগ

আফগানিস্তানে শিয়া মসজিদে হামলার নিন্দায় মাজমার বিবৃতি

সৌদি আরবে ৪ শিয়া মুসলিমের শিরোচ্ছেদ (ছবি)

সন্ত্রাসবাদ দমনে সৌদি-আমেরিকার জোট পুরোপুরি লোক দেখানো'

শিয়াদের উপর হামলার প্রতিবাদে অনশনে পারাচিনারে হাজার হাজার শিয়া

হোসাইনি দালানে খতম-এ কুরআন সভার সমাপনী অনুষ্ঠান (সচিত্র)

আত্মিক প্রশান্তি তাকওয়া ও পরহেজগারির অন্যতম প্রতিফল

গাজা উপত্যকার দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য ইরানি ইফতার

চাকরিতে বাধা হিজাব ; নিরাপত্তা সংস্থার বিরুদ্ধে মামলা

লাদেন এখনো জীবিত আছে : স্নোডেন

রোমে ইমাম মাহদি (আ.) এর জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা (ছবি

যশোরে “সোনালী আলোর অপেক্ষায়” শীর্ষক আলোচনা সভা

আর্কাইভ

Masoumeen

ইমাম হুসাইন (আ.)এর ঘাতকদের খোদায়ি শাস্তি

হজ্ব

দুই নামাজ একসাথে পড়ার শরয়ী দললি

ইমাম জাফর সাদিক (আ.)-এর দৃষ্টিতে মধ্যপন্থা ও অপচয়!

নবী রাসূল প্রেরণের প্রয়োজনীয়তা

যিয়ারতে আশুরার গুরুত্ব

আল্লাহ্‌র ন্যায়পরায়ণতা

সূরা আত তাওবা; (১৮তম পর্ব)

হযরত ফাতেমা যাহরা (সা. আ.) এর অমিয় বাণী

আধ্যাত্মিক পথ পরিক্রমায় ক্রন্দনের ভূমিকা

আবতার কে বা কা’রা?

রেজা (আ.) এর মাজারে কানাডীয় যুবকের ইসলাম গ্রহণ

আর্কাইভ

Ahlul-Bayt as the Earth Angels

ইমাম জাফর সাদেক (আ) : জ্ঞান ও নীতির ঝাণ্ডাবাহী

আহলে বাইত

সূরা আন'আম;(৩৮তম পর্ব)

অস্ট্রেলিয়ায় শোক মজলিশের আয়োজন

রোজা সংক্রান্ত মাসাআলা (১)

হযরত মহানবী (স.) এর স্ত্রীদের অবমাননাকে হারাম ঘোষণা করে আয়াতুল্লাহ খামেনেয়ী’র ফতওয়া

কারবালার মহাবিপ্লব ইসলাম ও মানব-সভ্যতার শ্রেষ্ঠ গৌরব

দোয়া কুমাইল

দোয়া-ই-কুমাইলের ইতিবৃত্ত ও ফজিলত

ইমাম রেজার (আ.) কতিপয় জ্ঞানগর্ভ বাণী

আলী(আ.): বিশ্বনবী (সা.)'র হাতে গড়া শ্রেষ্ঠ মানব

হযরত ফাতেমা (সা.আ.) এর শাহাদাত বার্ষিকী

আর্কাইভ